রবিবার, ২৪-জুন ২০১৮, ০৬:৫০ অপরাহ্ন
  • জেলা সংবাদ
  • »
  • ঘুমন্ত কিশোরীকে তুলে নিয়ে গণধর্ষণ, অতঃপর...

ঘুমন্ত কিশোরীকে তুলে নিয়ে গণধর্ষণ, অতঃপর...

sheershanews24.com

প্রকাশ : ১৩ জুন, ২০১৮ ০৭:৪৬ অপরাহ্ন

শীর্ষনিউজ, লক্ষ্মীপুর: লক্ষ্মীপুরে এক কিশোরীকে বাড়ি থেকে তুলে নিয়ে ধর্ষণ শেষে অচেতন অবস্থায় রেখে লম্পটরা পালিয়ে গেছে বলে অভিযোগ উঠেছে। মঙ্গলবার রাতে সদর উপজেলায় এ ঘটনা ঘটে। বুধবার দুপুরে স্থানীয়রা কিশোরীকে উদ্ধার করেন।

পরে চিকিৎসার জন্য অসুস্থ অবস্থায় সদর হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিৎসক তাকে পুলিশের সহযোগিতায় যাওয়ার জন্য পরামর্শ দেন।

এদিকে ঘটনার পর থেকে কিশোরীকে থানা পুলিশে জানানো ও হাসপাতালে ভর্তি হতে না দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে স্থানীয় এক প্রভাবশালী মহলের বিরুদ্ধে।

নির্যাতনের শিকার কিশোরীর স্বজনরা জানান, মঙ্গলবার সন্ধ্যার পর ঘরে ঢুকে জোর করে কৃষক বাবার ওই কিশোরী মেয়েকে তুলে নিয়ে পলাক্রমে গণধর্ষণ করে কয়েকজন লম্পট। পরে তারা বাড়ির পাশে তাকে নগ্ন ও অচেতন অবস্থায় রেখে পালিয়ে যায়।

ঘটনার পর কিশোরীর মা তাকে খোঁজাখুজির এক পর্যায়ে দেখতে পেয়ে চিৎকার দিয়ে উঠেন। আশপাশের লোকজন এসে কিশোরীকে রাতেই হাসপতালে নিয়ে আসলে একটি প্রভাবশালী মহল মীমাংসার আশ্বাসে তাদেরকে থানা পুলিশের কাছে নির্যাতনের ঘটনা বলতে নিষেধ করে বাড়ি ফিরিয়ে নেয়।

এরপর ঘটনা এলাকায় জানাজানি হলে স্থানীয়রা ফের হাসপাতালে তাকে নিয়ে আসেন। পরে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে নিয়ে দ্রুত মামলা করাসহ পুলিশের সহযোগিতায় হাসপাতালে ভর্তি হওয়ার পরামর্শ দেন।

নির্যাতিত কিশোরী জানান, রাতে তাকে ঘুমন্ত অবস্থায় ঘর থেকে মুখে কাপড় চাপা দিয়ে তুলে বাইরে নিয়ে জোর করে কয়েকজন পালাক্রমে ধর্ষণ করে। ধর্ষকদের কথা বার্তা শুনে দুইজনকে চিনতে পারার দাবি ওই কিশোরীর।

নির্যাতিত কিশোরীর মা জানান, এ ঘটনায় স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদ সদস্যসহ গণ্যমান্য ব্যক্তিদের কাছে বিচার দাবি করলে তারা ন্যায় বিচার করবে বলে অশ্বস্ত করলেও বিষয়টি ধামাচাপা দিয়ে সুরাহা করছে না এবং আইনের আশ্রয় যেতে বাধা দিচ্ছেন।

স্থানীয় ইউপি সদস্য ইসমাইল হোসেন বলেন, এলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গের সাথে আলোচনা করে অচিরেই এর সুরাহা করা হবে।

স্থানীয় গ্রাম্য মাতাব্বর সফিউল্যাহর ছেলে মনির ধর্ষণের সঙ্গে জড়িত বলে জানা গেছে। এ বিষয়ে সফিউল্যাহ বলেন, গ্রামের ইজ্জত রক্ষার্থে ঘটনাটি স্থানীয়ভাবে মিটমাট করার চেষ্টা করছি। আমার ছেলে এতে জড়িত না।

চন্দ্রগঞ্জ থানার ওসি তদন্ত মো. জাফর আহাম্মদ জানান, কিশোরী ও তার বাবা থানায় এসে মৌখিতভাবে বিষয়টি জানিয়েছেন। তিনি এজহার নিয়ে আইনগতভাবে ব্যবস্থা নিবেন। তবে অভিযুক্ত কাউকে গ্রেফতার করা সম্ভব হয়নি।

শীর্ষনিউজ/এইচএস