বৃহস্পতিবার, ২১-জুন ২০১৮, ১০:১৫ পূর্বাহ্ন
  • এক্সক্লুসিভ
  • »
  • বাংলাদেশের গণতন্ত্র সন্ধিক্ষণে: ডিপ্লোম্যাটে কলাম

বাংলাদেশের গণতন্ত্র সন্ধিক্ষণে: ডিপ্লোম্যাটে কলাম

sheershanews24.com

প্রকাশ : ১৬ ফেব্রুয়ারী, ২০১৮ ১২:১৩ অপরাহ্ন

শীর্ষনিউজ ডেস্ক: বাংলাদেশের গণতন্ত্র সন্ধিক্ষণে। সম্প্রতি দেশের প্রধান বিরোধী দল বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল- বিএনপি চেয়ারপারসন ও দুবারের প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়াকে একটি দুর্নীতি মামলায় ৫ বছরের কারাদণ্ড দিয়েছেন একটি আদালত। ২০০৬ থেকে ২০০৮ পর্যন্ত জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট থেকে ২ কোটি ১০ লাখ টাকা নিজের অ্যাকাউন্টে ট্রান্সফার করার অভিযোগ করা হয় তার বিরুদ্ধে। তার গ্রেফতার দেশকে অনিশ্চয়তার দিকে ঠেলে দিয়েছে।

দ্য ডিপ্লোম্যাটের মতামত কলামে এক প্রতিবেদনে এমনটা বলেছেন কেএস ভেঙ্কটাচালম। তিনি একজন কলামিস্ট ও রাজনৈতিক ভাষ্যকার।

ভেঙ্কটাচালম লিখেছেন, ডিসেম্বরে সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে এমন ঘোষণার এক সপ্তাহ পরই রায়টি দেয়া হলো। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধীন বর্তমান আওয়ামী লীগ সরকারকে চ্যালেঞ্জ ছুড়ে দেয়ার মতো একমাত্র বিকল্প হলো খালেদার দল। এই দণ্ডাদেশের পর ব্যাপক প্রতিবাদ হচ্ছে। বিএনপি কর্মী ও সমর্থকরা ঢাকার রাজপথে নেমেছেন। নেত্রীকে মুক্তি না দিলে ডিসেম্বরের নির্বাচন বর্জনের হুমকি দিয়েছেন বিএনপির সমর্থকেরা।

তার মতে, ২০১৪’র জানুয়ারিতে হওয়া সর্বশেষ নির্বাচনও বর্জন করেছিল বিএনপি ও অন্যান্য বিরোধী দলগুলো। তারা এমনও অভিযোগ করছেন যে, ক্ষমতা আঁকড়ে ধরে রাখতে আওয়ামী লীগের ষড়যন্ত্রের অংশ হিসেবে সরকার খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে বানোয়াট মামলা দাঁড় করিয়ে রাজনৈতিক প্রতিহিংসা চরিতার্থ করছে।

প্রতিবেদনে বলা হয়, এখন খালেদা জিয়ার দলের সামনে করণীয় আছে সামান্যই। ডিসেম্বরের নির্বাচনে যদি তারা অংশগ্রহণে অস্বীকৃতি জানায়, তাহলে দলের নিবন্ধন বাতিল হবে। শেখ হাসিনার জন্য টানা তৃতীয় মেয়াদের পথ সুগম হবে।

ভেঙ্কটাচালমের মতে, বিএনপি নির্বাচনে অংশ নেবে এমনটা যদি ধরে নেই, তাহলে খালেদার অনুপস্থিতি নির্বাচন জয়ে দলের সম্ভাবনার ওপর মারাত্মক প্রভাব ফেলতে পারে। খালেদা জিয়া, তার পুত্র তারেক রহমানকে পরবর্তী উত্তরাধিকার হিসেবে ধরে রেখেছেন। কিন্তু তিনি বর্তমানে গ্রেফতার এড়াতে নির্বাসনে রয়েছেন। তার মায়ের একই মামলায় আদালত তারেক রহমানকেও অনুপস্থিত দেখিয়ে ১০ বছরের দণ্ডাদেশ দিয়েছেন।

‘বাংলাদেশে দুই রাজনৈতিক দল বিএনপি ও আওয়ামী লীগের আধিপত্য। ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগকে অখ্যাত কোন তৃতীয় দলের চ্যালেঞ্জ করাটা কার্যত অসম্ভব। খালেদা জিয়ার দণ্ডকে কেন্দ্র করে যদি বিএনপির সম্ভাবনা ধূলিসাৎ হয়, তাহলে বাংলাদেশ ডি-ফ্যাক্টো এক-দলীয় রাষ্ট্রে পরিণত হবে।’

ডিপ্লোম্যাটের মতামত কলামে দক্ষিণ এশিয়াবিষয়ক এই রাজনৈতিক ভাষ্যকার আরো লিখেছেন, ২০০১ থেকে ২০০৬ পর্যন্ত খালেদা জিয়া প্রধানমন্ত্রী থাকাকালীন শাসনের কারণে বর্তমান এই ঘোলাটে পরিস্থিতির দায় বিএনপির ঘাড়েও আছে।

দুর্নীতিবিরোধী ওয়াচডগ ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল ২০০৫ সালে খালেদার শাসনামলে বাংলাদেশকে সবথেকে দুর্নীতিগ্রস্ত দেশ হিসেবে চিহ্নিত করেছিল।

উল্লেখ্য, বর্তমান আওয়ামী লীগ সরকারও ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনালের ২০১৬ করাপশন পারসেপশন ইনডেক্সে অন্যতম দুর্নীতিগ্রস্ত দেশ হিসেবে চিহ্নিত হয়েছে।

এতে আরো বলা হয়, খালেদার শাসনামলের ইতি ঘটেছিল নাটকীয়ভাবে। ২০০৬ সালের ডিসেম্বরে তার মেয়াদ শেষ হলে, নির্বাচন তদারকিতে তত্ত্বাবধায়ক সরকারের নেতৃত্ব কে দেবেন তা নিয়ে রাজনৈতিক দলগুলো একমত হতে ব্যর্থ হয়। এ পরিস্থিতিতে হস্তক্ষেপ করে সেনাবাহিনী। তাদের সমর্থনে তত্ত্বাবধায়ক সরকার ক্ষমতায় ছিল দু’বছর। যাদের কিনা দায়িত্বে থাকার কথা মাত্র ৯০ দিনের জন্য। এই তত্ত্বাবধায়ক সরকারই খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগ এনেছিল।

(লেখাটি দ্য ডিপ্লোম্যাটে প্রকাশিত কেএস ভেঙ্কটাচালমের কলাম ‘ইজ দিস দ্য এন্ড অব দ্য টু পার্টি সিস্টেম ইন বাংলাদেশ’ এর গুরুত্বপূর্ণাংশের অনুবাদ।)
 
শীর্ষনিউজ/এইচএস